Others

কি করলে দোকানে বেশি বেচাকেনা হবে জানুন

যারা দোকানদারির ব্যবসা করেন তাদের জন্য কি করলে দোকানে বেশি বেচাকেনা হবে এটা জানা অতি জরুরি। কেননা দোকানে যত বেশি বেচাকেনা হবে আপনার ব্যবসা তত বেশি বৃদ্ধি পাবে এবং আপনি তত বেশি লাভবান হবেন।

এই লেখাটিতে আমরা আলোচনা করব কি করলে দোকানে বেশি বেচাকেনা হবে এবং দোকানে বেশি বেচাকেনা হওয়ার জন্য কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করা যায় সে সম্পর্কে।

কেননা দোকানদারের সাথে বেচাকেনা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। একটি দোকানের মূল হল বেচাকিনা। যদি বেচাকেনা না থাকে তাহলে ওই দোকান থেকে কোনোভাবেই লাভ করা সম্ভব নয়। তাই আপনাকে জানতে হবে কি করলে দোকানে বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

কি করলে দোকানে বেশি বেচাকেনা হবে

দোকানে বেচাকেনা বৃদ্ধি করতে আপনাকে কয়েকটি দিকে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে কাস্টমারের সাথে আপনার সম্পর্ক, এবং আপনার ব্যবসায়িক পণ্যের কোয়ালিটি, আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের স্থান, আপনি কাস্টমারের চাহিদা কতটুকু পূরণ করতে পারেন।

অন্যদের তুলনায় আপনার দোকানদারির ধরন কতটা উন্নত, আপনি কাস্টমার সম্পর্কে কতটা রিচার্জ করেন, এবং আপনার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান কেমন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন। এই বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে আশা করি আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

এছাড়াও আরো অনেক পদ্ধতি আছে যেগুলো অবলম্বন করে একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে এবং ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ার পরে পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করলে আশা করা যায় দ্রুত আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি আর্টিকেলঃ

১.সঠিক জায়গায় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান স্থাপন

দোকান বা অন্য কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান স্থাপনের আগে আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে সঠিক স্থান। আপনি যেই রিলেটেড দোকান তৈরি করবেন, মালের ক্যাটাগরি অনুযায়ী ওই স্থানের গ্রাহকদের চাহিদা কেমন এর উপরে নির্ভর করে দোকানে স্থাপন করতে হবে।

দোকানের আশেপাশের গ্রাহকদের টার্গেট করে তাদের চাহিদা অনুযায়ী সঠিক পণ্যের দোকান স্থাপন করতে হবে। গ্রাহকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে সঠিক স্থানে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান তৈরি করলে আশা করি দ্রুত আপনার বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

২.ইউনিক ভাবে দোকান সাজানো

আশেপাশের অন্যান্য সকল দোকানে তুলনায় আপনার দোকানটি নুতন পদ্ধতিতে সাজাতে হবে। আপনি দোকান যত ইউনিকভাবে সাজাতে পারবেন কাস্টমাররা তত আপনার দোকানের প্রতি আকৃষ্ট হবে। তাই আপনি একটি দোকান তৈরি করার পরে অন্যদের থেকে ইউনিক ভাবে সাজানোর চেষ্টা করবেন।

আমরা এই সকল দিকে বেশি নজর দেই না, যার কারণে আমাদের দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পায় না। আপনার দোকানের ইউনিক ডিজাইন যদি গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে পারে তাহলে আশা করা যায় দ্রুত আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

৩.ব্যবসায়িক পণ্যের কোয়ালিটি

দোকানের বেচাকেনা অনেকটা ব্যবসায়িক পণ্যের কোয়ালিটির উপর নির্ভর করে। আপনার দোকানের মালামাল গুলো যত ভালো ও কোয়ালিটি ফুল হবে কাস্টমাররা তত বেশি পছন্দ করবে। তাই দোকানের বেচাকিনা বৃদ্ধি করার জন্য সব সময় ভালো কোয়ালিটির মালামাল বিক্রি করবেন।

আমার মতে একটি দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাওয়ার হার ৯০% নির্ভর করে মালামালের কোয়ালিটির উপরে। তাই দোকানি ভাইদের কাছে বিশেষ ভাবে অনুরোধ রইলো, আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি করার জন্য অবশ্যই ভালো কোয়ালিটির মালামাল বিক্রি করবেন।

৪.প্রতিষ্ঠান ও মালামাল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা

ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান/ দোকান ও মালামাল গুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। আপনার দোকানের মালামাল গুলো যত বেশি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকবে কাস্টমাররা আপনার দোকানে আসতে তত বেশি আগ্রহ পোষণ করবে। তাই দোকানে বেচাকেনা বৃদ্ধির অন্যতম একটি উপায় হল প্রতিষ্ঠান ও মালামাল পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা।

৫.ব্যবসার ক্ষেত্রে সততা বজায় রাখা

ব্যবসার ক্ষেত্রে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বলে আমি মনে করি সততা। আপনি যদি ব্যবসায় সততা বজায় রাখতে পারেন তাহলে কাস্টমার আপনাকে অনেক পছন্দ করবে এবং প্রয়োজনীয় মালামাল গুলো আপনার কাছ থেকে ক্রয় করবে।

সত্যবাদী মানুষকে সবাই পছন্দ করে। তাই আশা করি আপনি যদি ব্যবসার ক্ষেত্রে সততা বজায় রাখেন তাহলে দ্রুত আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে এবং আপনার ব্যবসায় উন্নতি ঘটবে।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি আর্টিকেলঃ

৬.কাস্টমারের চাহিদা পূরণ করা

কাস্টমারের চাহিদা বলতে বুঝানো হয়েছে মনে করেন আপনি একটি মুদির দোকান তৈরি করলেন। সাধারণত কাস্টমাররা এক দোকান থেকে অনেক ধরনের পণ্য ক্রয় করতে পছন্দ করে। তাই আপনি চাল ডালের পাশাপাশি অন্যান্য সকল মুদি দ্রাব্য রাখতে পারেন। এবং ডিম, তৈল, হাঁস মুরগির খাবার ইত্যাদি পণ্যগুলো ও রাখতে পারেন।

তাহলে কাস্টমাররা আপনার দোকান থেকে একটি পণ্য ক্রয় করে তাদের চাহিদা অনুযায়ী অন্য পণ্যগুলো ক্রয় করতে পারবে। এভাবে আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

৭.হালাল উপায়ে ব্যবসা করা

হারাম পথে ব্যবসা করে খুব দ্রুত বড়লোক হওয়া যায় কিন্তু সফল ব্যবসায়ী হওয়া যায় না। আপনি হারাম পথে ব্যবসা করে যত টাকা উপার্জন করবেন ঠিক কোন এক কারণে তার থেকে বেশি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। এছাড়াও হারাম পথে উপার্জিত টাকা কখনোই ভালো কিছু বয়ে আনেনা।

তাই সব সময় হালাল পথে ব্যবসা করার চেষ্টা করবেন। হালাল পথে ব্যবসা করলে আশা করি দ্রুত আপনার দোকানে বেশি বেচাকেনা হবে।

৮.প্রভুর কাছে প্রার্থনা করা

আমরা যখন কোন বিপদে পড়ি তখন আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি। ঠিক তেমনি আপনি যখন একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা দোকান শুরু করবেন তখন থেকে প্রতিদিন নামাজের পরে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করবেন, যেন আপনার দোকানের বেচাকেনা ভালো হয় এবং আল্লাহর রহমত থাকে।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, আশা করি উপরে দেখানো পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করে দোকান অথবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করলে আপনার বেচাকেনা অনেক বৃদ্ধি পাবে।

FAQs

ব্যবসায় সফল হওয়ার সহজ উপায়?

ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে একটি ইউনিক ব্যবসা আইডিয়া খুঁজে বের করতে হবে, এরপরে সকলের থেকে আলাদা ভাবে ও সৎভাবে ব্যবসা পরিচালনা করবেন।

দোকানে বেশি বিক্রি হওয়ার উপায়?

দোকানে বেশি বিক্রি হওয়ার জন্য আপনাকে নজর রাখতে হবে পন্যের কোয়ালিটির দিকে এবং আপনার ম্যানেজমেন্টের দিকে। এরপরে সঠিক জায়গায় দোকান স্থাপন করে সঠিক কাস্টমার টার্গেট করলে আপনার দোকানের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাবে।

Business Of BD

হাই,ব্যবসা নিয়েই আমার পড়াশোনা এবং ব্যবসা নিয়েই আমার ক্যারিয়ার। ব্যবসা নিয়ে লিখতে ভালবাসি, তাই ব্যবসা নিয়েই এই ব্লগটি করা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button