Business Tips

ফুটপাতে ব্যবসা আইডিয়া সেরা ৯টি

ফুটপাতে লাভজনক ব্যবসা গুলো হলো জামা কাপড়ের ব্যবসা, মোবাইল এক্সেসরিজ বিক্রি, খাবারের ব্যবসা, চা ও কফির ব্যবসা, বাচ্চাদের খেলনা বিক্রি, কসমেটিক্স পণ্য বিক্রি ইত্যাদি।

আপনি যদি ফুটপাতের ব্যবসা করার চান, তাহলে আমি আপনার মন মানসিকতাকে স্যালুট জানাই। আমরা অনেকেই মনে করি ফুটপাতে ব্যবসা করা অনেক খারাপ কাজ এটাকে ছোট চোখে দেখি।

কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কোন ব্যবসা ছোট নয়, বরং যারা এই সকল ব্যবসায়ের সমালোচনা করে তাদের মন মানসিকতা ছোট। আপনি প্রথমে একটি ফুটপাতে ব্যবসা চালু করে পরবর্তীতে ওই ব্যবসাকে একটি কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে পারবেন।

এরকম অনেক অহরহর উদাহরণ আমাদের চারপাশে ছড়িয়ে আছে। ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই কিছু নিয়ম কারণ আপনাকে মেনে চলতে হবে তার মধ্যে অন্যতম হলো সবসময় সততার সাথে ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে, তাহলে আপনি অতি দ্রুত সফলতা পাবেন।

ফুটপাতে ব্যবসা করার সুবিধা

ফুটপাতে ব্যবসা করার অনেক সুবিধা রয়েছে। আপনারা খুব সামান্য পুঁজি নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন এবং এই সকল ব্যবসায় লস হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম। বিশেষ করে লোকালয়ে স্থানে যদি আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন সেক্ষেত্রে অতি দ্রুত আপনার ব্যবসা প্রসার হওয়া শুরু করবে।

ফুটপাতে ব্যবসা করার সুবিধা গুলো হলোঃ

  • অল্প পুঁজিতে ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।
  • লস হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম।
  • নিজের স্বাধীনতা অনুযায়ী ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন।
  • ব্যবসা পরিচালনার জন্য নির্দিষ্ট কোন অফিস/দোকান প্রয়োজন হবে না।
  • আপনি চাইলে একটি ভ্যান গাড়ি নিয়ে ফুটপাতে প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।
  • স্বল্প পরিশ্রমে আপনি এই ব্যবসা পরিচালনা করতে পারবেন।
  • এই ব্যবসা পরিচালনার জন্য অধিক জ্ঞান অর্জন করতে হবে না।
  • ফুটপাতে ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য অতিরিক্ত কর্মচারী প্রয়োজন নেই।
  • ফুটপাতে ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে বাড়তি খরচ খুবই কম।

এছাড়াও ফুটপাতে ছোটখাটো ব্যবসা করায় অনেক উপকারিতা রয়েছে। ফুটপাতে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া সম্পর্কে এই লেখাটিতে বিস্তারিত জানানো হবে।

ফুটপাতে লাভজনক ব্যবসা

বর্তমানে ফুটপাতের লাভজনক ব্যবসা আইডিয়াগুলো হলো বাচ্চাদের খেলনা বিক্রি করা, চা ও কফি অথবা ঠান্ডা ড্রিঙ্কস বিক্রি করা, শুকনো খাবার ও পানি বিক্রি করা, মোবাইল এক্সেসরিজ বিক্রি করা,

জামা কাপড় বিক্রি করা, কসমেটিক্স পণ্য বিক্রি করা, ফল বিক্রি করা, ফুচকা ও চটপটি বিক্রি করা। চলতি বছরের প্রেক্ষাপটে বর্তমানে ফুটপাতে এই সকল ব্যবসাগুলো আধিপত্য বিস্তার করেছে। অল্প পুঁজি দিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

সামান্য লোকবল এবং সামান্য পুঁজি নিয়ে যেকোনো জায়গায় ফুটপাতে ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। ফুটপাতে ব্যবসা করে সফলতা পাওয়া খুবই সহজ শুধুমাত্র আপনাকে কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। চলুন প্রথমে ফুটপাতে সবথেকে লাভজনক ব্যবসা গুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

১.বাচ্চাদের খেলনা বিক্রি করা

বর্তমানে অনেকেই এই ব্যবসাটি করে থাকে। আপনি একটি ভ্যানগাড়ি করে অনেকগুলো বাচ্চাদের খেলনা নিয়ে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে অথবা ফুটপাতে হেঁটে হেঁটে বিক্রি করতে পারবেন। সাধারণত ফুটপাতে খেলনা বিক্রির ক্ষেত্রে আপনাকে মিডিয়াম প্রাইজ এর খেলনা চয়েস করতে হবে।

এবং খেলনাগুলো অবশ্যই আকর্ষণীয় ও আনন্দদায়ক হতে হবে। মার্কেটের সামনে ফুটপাতে অথবা কিন্ডারগার্ডেন স্কুলের সামনের ফুটপাথে, পার্কের সামনে ফুটপাতে, এক কথায় যেখানে বাচ্চাদের আনাগোনা বেশি ওই সকল জায়গায় এই ব্যবসাটি করতে পারেন।

অল্প কিছু টাকা ইনভেস্ট করে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সাধারণত ফুটপাতে বাচ্চাদের খেলনা বিক্রি করা ব্যবসা শুরু করতে ২-৩ হাজার টাকা মূলধন প্রয়োজন হতে পারে।

২.চা ও কফি বিক্রি করা

বহুকাল ধরে ফুটপাতে এই ব্যবসাটি সব থেকে বেশি হয়ে আসছে। বাজারে, মার্কেটে, কলেজের সামনে,  অফিস আদালতের সামনে, অর্থাৎ যেই স্থানে লোকজনের আনাগোনা বেশি সেই জায়গায় ফুটপাতে চা ও কফি বিক্রি করতে পারেন।

প্রথমে খুবই অল্প কিছু টাকা ইনভেস্ট করে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। ফুটপাতে চা ও কফি বিক্রি করা সহজ একটি কাজ। তবে আপনাকে ভালোভাবে চা ও কফি তৈরি করা সম্বন্ধে জানতে হবে। আপনারা চাইলে হেঁটে হেঁটে অথবা নির্দিষ্ট একটি স্থানে বসে চা ও কফি বিক্রি করতে পারেন।

৩.ঠান্ডা ড্রিংকস বিক্রি করা

চা ও কফির পাশাপাশি ঠান্ডা ড্রিংকস ও বিক্রি করতে পারেন। অথবা আপনারা শুধুমাত্র ঠাণ্ডা ড্রিঙ্কস ফুটপাতে বসে বিক্রি করতে পারবেন। ঠান্ডা ড্রিংকস বিক্রি করার ক্ষেত্রে টার্গেট প্লেস হল বাস স্ট্যান্ড, অফিস আদালতের সামনে, কলেজ ইউনিভার্সিটি সামনে।

সাধারণত এই সকল স্থানে ঠান্ডা ড্রিংসের চাহিদা বেশি। ১০০০-১৫০০ টাকা ইনভেস্ট করে প্রথমে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আপনি যদি ব্যবসা সম্পর্কে আইডিয়া রাখেন সেক্ষেত্রে অতি দ্রুত এই ব্যবসায় সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

৪.শুকনো খাবার ও পানি বিক্রি করা

ফুটপাতে শুকনো খাবার ও পানির চাহিদা অনেক। ব্যস্ততম শহরে গরমের দুপুরে মানুষের অনেক পানির পিপাসা পায়, আপনারা চাইলে ফুটপাতে শুকনো খাবার এবং পানি বিক্রি করতে পারেন। এই ব্যবসা করার জন্য প্রথমে আপনাকে ৫০০-১০০০ টাকা ইনভেস্ট করতে হবে।

বাস স্ট্যান্ড এবং অফিস আদালতের সামনে ও কলেজ ইউনিভারসিটির সামনের ফুটপাতে এই ব্যবসাটি করতে পারেন। বর্তমানে এই সকল স্থানে গেলে আমরা অনেক ফুটপাত দোকান দেখতে পাব যেখানে শুকনো খাবার ও পানি বিক্রি করে।

৫.মোবাইল এক্সেসরিজ বিক্রি করা

নতুন ও পুরনো মোবাইলের যাবতীয় এক্সেসরিজ ফুটপাতে বসে বিক্রয় করতে পারবেন। কোন ধরনের দোকান ছাড়াই একটি পার্টি দিয়ে অথবা ভ্যান গাড়ি করে মোবাইলের যাবতীয় অ্যাক্সেসরিজ যেমন: চার্জার, হেডফোন, ব্লুটুথ, এয়ারবার্ডস, ছোট ব্লুটুথ বক্স ইত্যাদি বিক্রয় করতে পারবেন।

এই প্রোডাক্টগুলোর চাহিদা অনেক বেশি আপনারা ২-৩ হাজার টাকা ইনভেস্ট করে ফুটপাতে মোবাইল এক্সেসরিজ বিক্রির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসা করার জন্য সবথেকে ভালো জায়গা হল যেখানে ১৫-৪০ বছর বয়সী মানুষের চলাচল বেশি।

এই ব্যবসা শুরু করার আগে অবশ্যই আপনাকে উক্ত এক্সেসরিজ গুলো সম্পর্কে জানতে হবে। এবং সব সময় কাস্টমারদের ভালো জিনিস দিবেন, বিক্রি বাড়ানোর জন্য সামান্য লাভ রেখে শতকরা (%) হিসেবে ডিসকাউন্ট দিতে পারেন।

৬.জামা-কাপড় বিক্রি করা

বর্তমানে জামাকাপড় বিক্রি করা একটি কমন ব্যবসা। ফুটপাতে বসে মিডিয়াম প্রাইজের জামাকাপড় বিক্রি করতে পারবেন। এই ব্যবসা করার জন্য প্রথমে আপনাকে ৫-১০ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। ভ্যানে করে অথবা নির্দিষ্ট স্থানে বসে ফুটপাতে জামা কাপড় বিক্রি করতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, আমরা বিভিন্ন সময় ফুটপাতে দেখতে পাই ১৫০-২০০ টাকায় টি শার্ট, প্যান্ট, লুঙ্গি, জামা ইত্যাদি বিক্রি করে। আপনারাও তাইলে অল্প কিছু টাকা ইনভেস্ট করে অল্প দামে এই প্রোডাক্টগুলো ক্রয় করে ফুটপাতে বিক্রি করতে পারবেন।

ফুটপাতে জামা কাপড়ের ব্যবসা করার জন্য সবথেকে ভালো সময় হলো বিকেল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।  এছাড়াও আপনারা সকাল টাইমে এই কাজটি চালিয়ে যেতে পারেন। ফুটপাতে জামা বিক্রি করার জন্য আপনারা লোকালয়ে স্থান টার্গেট করবেন।

৭.কসমেটিক্স পণ্য বিক্রি করা

কসমেটিক্স পণ্যের চাহিদা দিন দিন ক্রমশ বেড়েই চলেছে। ফুটপাতে ব্যবসা করার ক্ষেত্রে সবথেকে ইউনিক আইডিয়া হল কসমেটিক্স পণ্যর ব্যবসা। এই ব্যবসাটি করার জন্য প্রথমে আপনাকে ৫-৭ হাজার টাকা ইনভেস্ট করে চকবাজার থেকে কসমেটিক্স মালামাল ক্রয় করতে হবে।

এবং পরবর্তীতে ফুটপাতে বসে অথবা ভ্যান নিয়ে এগুলো বিক্রয় করতে পারবেন। মেয়েদের সব থেকে বড় নেশা হলো কসমেটিক্স ক্রয়ের নেশা। যতই লিপিস্টিক, মাস্কারা, নেইলপলিশ, কাজল, আইরিল ইত্যাদি থাকুক না কেন নতুন আরো এক্সেসরিজ কিনতে হবে।

তাই কসমেটিক্স পন্যর চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়া অস্বাভাবিক কিছুই নয়। আপনারা চাইলে মহিলা কলেজের সামনে, মার্কেটের সামনে, পার্কের সামনে ফুটপাতে কসমেটিক্স পণ্যের দোকান স্থাপন করতে পারেন। অথবা ভ্যানে করে এগুলো বিক্রয় করতে পারেন। কসমেটিক্স এক্সেসরিজ বিক্রির সব থেকে ভালো জায়গা ফুটপাত।

৮.ফল বিক্রি করা

আমরা অনেক সময় বিভিন্ন জায়গায় ফুটপাতে ফল বিক্রি করতে দেখি। সাধারণত ফুটপাতে যে সকল ফল বেশি বিক্রি হয়: আপেল, পেয়ারা, মালটা, কমলা, আঙ্গুর ফল, জাম, বড়ই, বেদানা, সবেদা, বাদাম, আনারস, নারকেল ইত্যাদি।

এই সকল ফলগুলো ভ্যানে করে ফুটপাতে বিক্রি করা হয়। ফুটপাতে ফল বিক্রি করার জন্য প্রথমে ৭-১০ হাজার টাকা ইনভেস্ট করে ভালো ফল ক্রয় করতে হবে। ফলের চাহিদা সারা বছর ধরে থাকে। ভাই আপনারা চাইলে পার্মানেন্টভাবে ফুটপাতে ফলের বিজনেস করতে পারেন।

এছাড়াও আপনারা বাদাম, সবেদা, নারিকেল, পেয়ারা এই ফলগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে পার্কে অথবা মার্কেটের সামনে ফুটপাতে বসে বিক্রয় করতে পারবেন।

৯.ফুচকা ও চটপটি বিক্রি করা

ফুটপাতের সব থেকে জনপ্রিয় ব্যবসা হল ফুচকা ও চটপটি বিক্রি করা। আপনারা চাইলে যেকোনো স্থানে বসে ফুটপাতে ফুসকা ও চটপটি বিক্রি করতে পারেন। বিশেষ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে, মার্কেটের সামনে, পার্কে, গলির মোড়ে, ব্রিজের উপরে তথা যে সকল জায়গায় মানুষ অবসর সময় কাটানোর জন্য যায়।

সেই সকল স্থানে ফুটপাতে ভ্যান গাড়িতে করে ফুচকা ও চটপটির ব্যবসা করতে পারি। এই ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রথমে ৫-৬ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। ফুচকা ও চটপটির ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করার তেমন কিছুই নেই। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ফুটপাতে এটি একটি কমন ব্যবসা।

তবে এই ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই আপনাকে ভালোভাবে ফুচকা ও চটপটি তৈরি করতে হবে। আপনার তৈরি করা ফুচকা ও চটপটি গুলো যত মজাদার হবে আপনার ব্যবসা তত বেশি দ্রুত প্রসার হবে।

ফুটপাত ব্যবসায় সফল হওয়ার উপায়

দ্রুত ফুটপাত ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য আপনাকে কিছু বিষয়ে জানা থাকতে হবে। সব সময় সৎ ভাবে সঠিক পন্থা অবলম্বন করে ব্যবসা করতে হবে এবং কাস্টমারদের সবথেকে ভালো পণ্যগুলো দেওয়ার চেষ্টা করবেন।

  • সৎভাবে ব্যবসা পরিচালনা করা।
  • ক্রেতাদের সাথে ভালো ব্যবহার করা।
  • ভালো পণ্য বিক্রি করা।
  • বিক্রয়ের স্থান সুসজ্জিত ও পরিষ্কার রাখা।
  • ক্রেতাদের মনোযোগ নেয়ার জন্য আধুনিক পন্থা অবলম্বন করা।
  • নিজেকে আধুনিকভাবে রিপ্রেজেন্ট করা।
  • পণ্যগুলো ক্রেতাদের মাঝে ভালোভাবে রিপ্রেজেন্ট করা।
  • ব্যবসা প্রসারণার জন্য আধুনিক আইডিয়াগুলো ব্যবহার করা।
  • ব্যবসায়ের পিছনে যথেষ্ট সময় দেওয়া।
  • কোন ধরনের পিছুকথায় মনোযোগ না দিয়ে নিজের ব্যবসা চালিয়ে নেওয়া।

প্রিয় পাঠক বৃন্দ, আশা করি উপরের বিষয়গুলো মেনে ফুটপাত ব্যবসা শুরু করলে অতি দ্রুত সফল হওয়া সম্ভব। তবে ফুটপাতে ব্যবসা করতে গেলে আপনারা কিছু অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারেন।

যেমন: পুরনো ফুটপাত ব্যবসায়ীরা ঝামেলা করতে পারে, ফুটপাতে ব্যবসা করার নিয়ম না মানলে পুলিশই ঝামেলা হতে পারে, দালাল চক্রের খপ্পরে পড়তে পারেন, পাতি নেতারা পণ্য ক্রয় করে টাকা না দিয়ে চলে যেতে পারে।

ফুটপাত ব্যবসা করার জন্য অবশ্যই উপরের বিষয়গুলো সম্মুখীন হওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

Business of bd এর ফুটপাতে সব থেকে লাভজনক সেরা ব্যবসা আইডিয়া সম্পর্কে এই লেখাটি এই পর্যন্তই সমাপ্ত। বিভিন্ন ধরনের বিজনেস/ ব্যবসা রিলেটেড আর্টিকেল পড়ার জন্য অবশ্যই Business of bd এর সাথে থাকবেন।

FAQs

ফুটপাতে কোন ব্যবসার সব থেকে লাভজনক?

সাধারণত ফুটপাতে ফুচকা ও চটপটির ব্যবসা এবং চা ও কফির ব্যবসা, জামা কাপড়ের ব্যবসা, কসমেটিক্স পণ্যের ব্যবসা সবথেকে বেশি লাভজনক।

ফুটপাতের ব্যবসা করার নিয়ম?

ফুটপাতে ব্যবসা করার জন্য প্রথমে আপনাকে মূলধন জোগাড় করতে হবে এবং জায়গা নির্ধারণ করতে হবে, পরবর্তীতে অল্প দামে ভালো প্রোডাক্ট ক্রয় করে ভ্যানে করে অথবা ফুটপাতে বসে বিক্রয় করতে পারবেন।

Business Of BD

হাই,ব্যবসা নিয়েই আমার পড়াশোনা এবং ব্যবসা নিয়েই আমার ক্যারিয়ার। ব্যবসা নিয়ে লিখতে ভালবাসি, তাই ব্যবসা নিয়েই এই ব্লগটি করা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button