Business idea

উৎপাদনমুখী ব্যবসা ৫০০০ টাকায় শুরু করুন

উৎপাদনমুখী ব্যবসা ৫০০০ টাকায় শুরু করার পদ্ধতি, এবং ৫০০০ টাকার মধ্যে কি কি উৎপাদানমুখী ব্যবসা করতে পারবেন। এই বিষয় নিয়ে আজকের আর্টিকেলে বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে।

উৎপাদন মুখী ব্যবসা বলতে বুঝানো হয় পণ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও সংযোজন এবং পরবর্তীতে উৎপাদনকৃত পণ্যের সকল কার্যক্রম বুঝানো হয়। পরিশ্রম ও যন্ত্রের মাধ্যমে উৎপাদনশিল্পে কাঁচামালকে প্রক্রিয়াজাত করে পরিণত পণ্যে রূপান্তর করার প্রক্রিয়াকে উৎপাদনমুখী ব্যবসা বলা হয়।

সাধারণত উৎপাদনমুখী ব্যবসার মধ্যে চিনি শিল্প, বস্ত্র শিল্প, পার্ট ও পাটজাত শিল্প, চামড়া শিল্প, সার শিল্প, সিমেন্ট শিল্প, নির্মাণ শিল্প, কাঁচামাল, মৎস্য উৎপাদন, ঘি মাখন ও পনির, দুধ উৎপাদন ইত্যাদি বুঝানো হয়।

অল্প মূলধনে উৎপাদনমুখী ব্যবসা

অল্প মূলধনে উৎপাদন মুখী ব্যবসা করা অসম্ভব বলা চলে। কেননা এই ব্যবসায় আপনাকে অনেক ইনভেস্ট করতে হবে, পণ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে প্রক্রিয়াজাতকরণ ও সংযোজন এর যাবতীয় খরচ বহন করতে হবে।

তবে আপনাদের সুবিধার্থে সবথেকে কম খরচে শুরু করতে পারবেন এমন কয়েকটি উৎপাদনমুখী ব্যবসা আইডিয়া সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। বর্তমানে গুগলে উৎপাদনমুখী ব্যবসা ৫০০০ টাকায় লিখে অনেক বেশি সার্চ করা হয়, তাই আমাদের এই আর্টিকেলের টাইটেলে উৎপাদনমুখী ব্যবসা ৫০০০ টাকায় দেয়া আছে।

প্রকৃতপক্ষে আপনি মাত্র ৫ হাজার টাকায় কোনভাবেই একটি উৎপাদানমুখী ব্যবসা সম্পূর্ণ পরিসরে দাঁড় করাতে পারবেন না। চলুন সবথেকে কম খরচে শুরু করতে পারবেন এমন কয়েকটি উৎপাদনমুখী ব্যবসা সম্পর্কে জেনে নেই।

উৎপাদনমুখী ব্যবসার আইডিয়া

উৎপাদনমুখী ব্যবসা আইডিয়াগুলো হল: মৎস্য উৎপাদন ব্যবসা, দুধ উৎপাদন ব্যবসা, কাঁচামাল উৎপাদন ব্যবসা, মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি ব্যবসা, আচার তৈরি ব্যবসা ইত্যাদি।

এই ব্যবসা গুলো ছোট পরিসরে মাত্র পাঁচ হাজার টাকায় শুরু করতে পারবেন। এছাড়াও বেশি ইনভেস্ট করে সিরামিক পণ্য উৎপাদন ব্যবসা, চানাচুর তৈরি, কাগজের প্যাকেট তৈরি, বিছানার চাদর বা বালিশের কাভার তৈরি, এনার্জি বাল্ব উৎপাদন, খেলাধুলার সামগ্রী উৎপাদন

গাড়ির যন্ত্রাংশ তৈরি, কার্পেট পাপোশ বা ক্লথ তৈরি, টিস্যু উৎপাদন ব্যবসা, শিশুদের খেলনা উৎপাদন, ঘি মাখন মিষ্টি ও পনির তৈরি, ষ্টেশনারী পণ্য উৎপাদন ব্যবসা, চামড়া জাত পণ্য উৎপাদন, পোশাক তৈরি, বেকারি পণ্য উৎপাদন এই ব্যবসা গুলো করতে পারেন।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি আর্টিকেলঃ

১.মৎস্য উৎপাদন ব্যবসা

বর্তমানে লাভজনক উৎপাদনমুখী ব্যবসা গুলোর মধ্যে মাছ উৎপাদন ব্যবসা অন্যতম। গ্রামে বসবাস করা উদ্যোক্তাদের জন্য এই ব্যবসাটি অনেক সহজ, এছাড়াও গ্রামের পুকুরে সামান্য খরচে একটি মৎস্য উৎপাদন ব্যবসা গড়ে তুলতে পারবেন।

এবং যারা শহরে বসবাস করেন আপনারা চাইলে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মৎস্য উৎপাদন করতে পারেন। তবে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মৎস্য উৎপাদনের জন্য বেশি টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। বর্তমানে শহরে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মৎস্য উৎপাদন করা হয়।

বর্তমানে মাছের চাহিদা দেশ ছাড়িয়ে বিদেশে পৌঁছে গিয়েছে। যারা গ্রামাঞ্চলে বসবাস করেন আপনারা পুকুরে কিংবা ডোবায় মাত্র ৫ হাজার টাকা খরচ করে এই উৎপাদনমুখী ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসা করার জন্য মাছের খাবার এবং রোগবালাই, পরিচর্যা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে।

২.কাঁচামাল উৎপাদন ব্যবসা

এই আর্টিকেলের দ্বিতীয় নাম্বারে রাখা হয়েছে বর্তমান সময়ের লাভজনক একটি উপাদানমুখী ব্যবসা কাঁচামাল উৎপাদন। কাঁচামাল বলতে বুঝানো হয় খাবার তরকারি যেমন: আলু, সবজি, মুলা, গাজর, টমেটো, শসা, পিয়াজ, রসুন ইত্যাদি।

৫,০০০ টাকায় প্রথমে ছোট পরিসরে কাঁচামাল উৎপাদন ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সামান্য টাকা ইনভেস্ট করে নিজেদের পরিত্যক্ত জমিতে ছোট একটি কাঁচামাল উৎপাদনের জমি প্রস্তুত করতে পারেন। এই ব্যবসা করার জন্য প্রথমে সবজি নির্ধারণ করে, চাষ সম্পর্কে জানতে হবে।

৩.দুধ উৎপাদন ব্যবসা

দুধের চাহিদা কম বেশি সারা বছর থাকে। উৎপাদনমুখী ব্যবসা গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া হল দুধ উৎপাদন। আমাদের দেশে দুধ উৎপাদনের জন্য গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষ পালন করা হয়।

তবে এই ব্যবসা করার জন্য যদি আপনার বাজেট ৫০০০ টাকা হয় তাহলে ছোট একটি বাচ্চা ছাগল ক্রয় করে, এটিকে লালন পালন করে বড় করে দুধ উৎপাদন করতে পারবেন। এছাড়াও বড় পরিসরে এই ব্যবসা শুরু করার জন্য মূলধন অনেক বেশি প্রয়োজন হবে।

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি আর্টিকেলঃ

৪.মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি ব্যবসা

আপনার মাটির হাড়ি পাতিল তৈরিতে দক্ষতা থাকলে মাত্র ৫ হাজার টাকায় একটি ছোট উৎপাদনমুখী ব্যবসা দাঁড় করাতে পারবেন। এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার দক্ষতা অনেক বেশি প্রয়োজন হবে। প্রথমে স্বল্প বাজেট দিয়ে এই ব্যবসা শুরু করে পরবর্তীতে বড় করতে পারবেন।

মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি করে বাজারে বিক্রি করার পাশাপাশি মাটি দিয়ে বিভিন্ন ধরনের ঘর সাজানোর শোপিস ও বাচ্চাদের খেলনা তৈরি করতে পারেন। বর্তমান বাজারে মাটির জিনিসপত্রের চাহিদা অনেক বেশি। তাই এই আর্টিকেলের মধ্যে মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি ব্যবসা রাখা হয়েছে।

৫.আচার তৈরির ব্যবসা

অল্প পুঁজি ইনভেস্ট করে ঘরোয়া ভাবে এই ব্যবসাটি পরিচালনা করতে পারেন। আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের আচারের চাহিদা রয়েছে যেমনঃ চালতার আচার, আমের আচার, আমলকির আচার, বড়ই আচার, তেতুলের আচার, রসুনের আচার, বোম্বাই আচার, খেজুরের আচার, জলপাই আচার, গার্লিক চাটনি ইত্যাদি।

এছাড়াও বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক ধরনের আচারের প্রচলন রয়েছে। আপনার যদি আচার তৈরিতে দক্ষতা থাকে তাহলে ঘরে বসে অল্প টাকা ইনভেস্ট করে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। ইতিমধ্যে অনেকেই আচার তৈরি করে নিজেকে স্বাবলম্বী হিসেবে রিপ্রেজেন্ট করেছে।

FAQs

কম টাকায় উৎপাদনমুখী ব্যবসা করার আইডিয়া?

সব থেকে কম টাকায় উৎপাদনমুখী ব্যবসা আইডিয়া হলো আচার তৈরি করা। সাধারণত এই ব্যবসা করার জন্য প্রথমে একটি সুস্বাদু ধরনের আচার নির্বাচন করতে হবে, এরপরে বাজার থেকে আচার তৈরীর উপাদান গুলো ক্রয় করে আচার তৈরি করতে হবে।

উৎপাদনমুখী ব্যবসা কি?

উৎপাদন মুখী ব্যবসা বলতে বুঝানো হয় পণ্য উৎপাদন করে যাবতীয় প্রক্রিয়াজাত সম্পন্ন করার পরে বাজারে বিক্রি করা তথা পরিশ্রম কিংবা যন্ত্রাংশের মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্য প্রক্রিয়াজাত করে আদর্শ পণ্যে রূপ দিয়ে বাজারজাত করা।

Business Of BD

হাই,ব্যবসা নিয়েই আমার পড়াশোনা এবং ব্যবসা নিয়েই আমার ক্যারিয়ার। ব্যবসা নিয়ে লিখতে ভালবাসি, তাই ব্যবসা নিয়েই এই ব্লগটি করা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button